৩৭তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান




Download 37 BCS Preli PDF File










Download 37 BCS Preli PDF File



গনিতঃ
১। সমকোণী
২। 3 root 5
৩। ফাঁকা সেট
৪। ৯.২%
৫। ৩৯
৬। ১৪২
৭। ২/৩**
৮। ৫
৯। ৪/৯
১০। 50 root 5
১১। ১৩৫
১২। ৫
১৩। ২৫%



English
.
36. Singular form—d—radius
37. correct sentence- C—all of it depends on you.
38. Complex sentence of “A rolling stone gathers no moss.”—d—A stone that rolls gathers no moss.
39. Appended meaning—C----joined
40. vigilantly—B—Adverb
41. alluring—B----tempting
42. Passive voice- C---The tree was planted here by whom?
43. Frailty, thy name is woman( Hamlet, William Shakespeare) Frailty--—A---N oun
44. Education is enlightening--- Enlightening—B—Participle
45. The family does not feel ……..going out—C—Like
46.I could not mend the computer myself. So, I ---------at a shop. A—had it mended
47. I saw -----one-eyed man. A—a
48. Omnivorous meaning—A—eating all types of food
49.It is raining cats and dogs. Best option-- B—Make sure you take an umbrella (May be)
50. Achilles Heel—B-Weak point
51.He worked with all sincerity . D--- Adverbial phrase
52. This is the book I lost. C---Adjective clause
53. Proviso meaning—C--Stipulation
54. Cassandra is a night owl. So, she does not usually get up before about---. A—11 am
55.Deleterious –antonym-- C--- Harmless
56. :Gerontion” the poem is written by--- A—T.S.Eliot
57. Lat work(Swan song) of Shakespeare---C—Tempest
58. “Elegy Written in a Country Church yard” the elegy written by--A—Thomas Gray
59. the comic drama” Volpone” written by—B---Ben Johnson
60. Iambic pentameter
61. The repetition of beginning consonant sound is known as---C--- Alliteration
62. Not poetic tradition--C---The Occult
63.Five lines poem-- B—Limerick
64. “Biographia Literaria” written by -- C---S. T. Coleridge ( Supernatural Poet)
65. Robert Browning is a -------poet. B--- Victorian
66. Othello gave Desdemona --------as a token of love. B—Handkerchief
67.P.B. Shelley’s ” Adonais “ is an elegy written for .. C—John Keats
68. The comparison of unlike things using words “As”---B—Simile
69. Restoration period starts from—B— 1660
70. “The Sun also Rises” the novel written by----C—Ernest Hemingway (American Novelist)


---------------
Computer part solution ) 
1. EX-OR ( INPUT00=0 output , input 11=0 output)
2. C (NOT operating system)
3. ব্যবহারের চাহিদা আনুযায়ী কম্পিউটিং সেবা দেয়
4. IPv6-128
5. OMR (input)
6. Unicode-65,536
7. ALL –(Android is a mobile operating system developed by Google, based on the Linux kernel and designed primarily for touchscreen mobile devices)
8. অ্যাপেল
9. EDSAC- Mercuty delay lines (It used mercury delay lines for memory, and derated vacuum tubes for logic.)
10. Amazon.com -1994 (Founded in July 5, 1994)
11. Simple Mail Transfer Protocol (SMTP)
12. TCP-protocol
13. Stack (In Stack, insertion operation is known as Push whereas deletion operation is known as Pop.)
14. তারহীন সংযোগ
15. ALU

-------------------
সাধারণ জ্ঞানঃ
বাংলাদেশে স্বীকৃত প্রথম অনারব মুসলিম দেশ – মালয়েশিয়া
ঐতিহাসিক ৬ দফা কে তুলা না করা হয়- ম্যাগনাকাটার সাথে
আলুর একটি জাত- ডায়মন্ড
প্রধান বীজ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান- BADC
সরকারি হিসেবে বাংলাদেশের গড় আয়ু-৭০.৭
২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী নারী পুরুষের অনুপাত- ১০৬ঃ১০০
বাংলাদেশের মোট EPZ কত – ১০ টি
ক্রিকেটে বাংলাদেশ কোন সালে টেস্টের মর্যাদা পায়- ২০০০
বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি রপ্তানি করে- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
বাংলাদেশে প্রথম মোবাইল ব্যাংকিং শুরু করে- ডাচ-বাংলা ব্যাংক
১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনী প্রতীক- নৌকা
বাংলাদেশের প্রথম স্বাধীন নবাব কে- মুর্শিদকুলী খান
বাংলাদেশি যুদ্ধ চলচ্চিত্র ধীরে বহে মেঘনা -আলমগীর কবির
বাংলাদেশের মর্যাদা অনুসারে ৩য় বীরত্বসূচক খেতাব- বীর বিক্রম
বাংলাদেশে সব চেয়ে বেশি উৎপাদিত ধান – বোর ধান
কোন বিভাগে সাক্ষরতার হার সর্বাধিক – বরিশাল
NILG এর পূর্ণরূপ- National Institute Of Local Government
বাংলাদেশের বার্ষিক সর্বোচ্চ গড় বৃষ্টিপাত হয় ? সিলেটে
বাংলাদেশের দীর্ঘতম নদী –মেঘনা
বাংলাদেশের কোন অঞ্চল বেশী খরা প্রবণ – উত্তর-পশ্চিম
IMF এর সদর দপ্তর কোথায়? ☞ ওয়াশিংটন ডিসি
জাতিসংঘের স্থায়ী সদস্য- যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, চীন, রাশিয়া ,ফ্রান্স
সলোমন দ্বীপপুঞ্জ কোন মহাসাগরে অবস্থিত- প্রশান্ত মহাসাগরে




Download 37 BCS Preli PDF File




উত্তরগুলো পুরোপুরি সঠিক নাও হতে পারে। কোন ভুল থাকলে কমেন্ট করে জানাবেন, এইটা ফেসবুক থেকে কালেক্ট(Mominul Alam, Jafar Iqbal Ansary, ) করা উত্তর। ধন্যবাদ।




বাংলাদেশ পল্লী বিদুৎ বোর্ড এর MCQ পরিক্ষার প্রশ্ন ২০১৬

বাংলাদেশ পল্লী বিদুৎ বোর্ড এর MCQ পরিক্ষার প্রশ্ন ২০১৬


বাংলাদেশ পল্লী বিদুৎ বোর্ড এর পরিক্ষার প্রশ্ন ২০১৬
পরীক্ষা- ২৩.০৯.১৬





শিক্ষানবিশ সংবাদকর্মী নিয়োগ দিচ্ছে দৈনিক যুগান্তর


শিক্ষানবিশ সংবাদকর্মী নিয়োগ দিচ্ছে দৈনিক যুগান্তর

জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা যুগান্তরে শিক্ষানবিশ সাংবাদিক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। রাজধানী ঢাকায় ওয়ার্ডভিত্তিক বেশ কয়েকজনকে এ পদে নিয়োগ দেওয়া হবে।
যোগ্যতা
স্নাতক পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। তবে সাংবাদিকতায় স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাস অথবা সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থীরা নিয়োগের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন। নিয়োগের ক্ষেত্রে রাজধানী ঢাকার স্থায়ী বাসিন্দাদের প্রাধান্য দেওয়া হবে।
আবেদন প্রক্রিয়া
আগ্রহী প্রার্থীরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র পাঠাতে পারবেন ‘ম্যানেজার (প্রশাসন), ক-২৪৪, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯’ ঠিকানায়। আবেদন করার সুযোগ থাকবে ২৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

বিস্তারিত জানতে দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ তারিখে প্রকাশিত বিজ্ঞাপনটি দেখুন :



আরএফএলে শোরুমে ম্যানেজার নিয়োগ

 

আরএফএলে শোরুমে ম্যানেজার নিয়োগ




শোরুমে ম্যানেজার পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে আরএফএল। দেশের বিভিন্ন স্থানে ১০ জনকে এ পদে নিয়োগ দেওয়া হবে। দেখে নিন আবেদনের জন্য বিস্তারিত :
যোগ্যতা
ন্যূনতম স্নাতক পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। সঙ্গে প্রার্থীদের সংশ্লিষ্ট কাজে পাঁচ থেকে ছয় বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। এ ছাড়া প্রার্থীদের যোগাযোগ ও মাইক্রোসফট অফিসে দক্ষ হতে হবে।
আবেদন প্রক্রিয়া
আগ্রহী প্রার্থীরা বিডিজবস ডটকমের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করা যাবে ২২ অক্টোবর, ২০১৬ তারিখ পর্যন্ত।
সূত্র : বিডিজবস ডটকম










দিশা”য় ১৭৫ টি পদের জন্য চাকুরির বিজ্ঞপ্তি

দিশা”য় ১৭৫ টি পদের জন্য চাকুরির বিজ্ঞপ্তি

Job Bangladesh Pratidin Prothom Alo

22 September, 2016

Deadline: 20 October, 2016





জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, রাজবাড়ী এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, রাজবাড়ী এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

Job Kalerkantho

22 September, 2016

Deadline: 20 October, 2016




পিপলস পোল্ট্রি এন্ড হ্যাচারী লিঃ এ ২৯টি পদের জন্য বিজ্ঞপ্তি


পিপলস পোল্ট্রি এন্ড হ্যাচারী লিঃ এ ২৯টি পদের জন্য বিজ্ঞপ্তি


Job Prothom Alo

22 September, 2016

Deadline: 8 October, 2016




ঢাকা বিশেষ জজ আদালতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

ঢাকা বিশেষ জজ আদালতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি



প্রতিষ্ঠান: ঢাকা বিশেষ জজ আদালত
আবেদনের শেষ তারিখ: ১৩ অক্টোবর, ২০১৬ ইং
বিস্তারিত…



ইবনে সিনা ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি


ইবনে সিনা ডায়াগনেস্টিক সেন্টারে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি



প্রতিষ্ঠান: ইবনে সিনা ডায়াগনেস্টিক সেন্টার
আবেদনের শেষ তারিখ: ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ইং
বিস্তারিত…..


First Finance এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

First Finance এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

প্রতিষ্ঠান: ফার্স্ট ফাইন্যান্স লিমিটেড
আবেদনের শেষ তারিখ: ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ইং
বিস্তারিত……



Anan group, Post: Electric Engineer, Project engineer, Deputy Project engineer

Anan group, Post: Electric Engineer, Project engineer, Deputy Project engineer



Source: The daily Ittefaq, Sep 21, 2016



National University Job Circular-2016

National University Job Circular-2016


National University, Post: Driver, Asst Electrician.




প্রিলিতে পাস করতে যেভাবে নিজেকে প্রস্তুত করবেন: সুশান্ত পাল




প্রিয় বন্ধুরা! এই লেখাটি আপনার কাজে লাগবে। তাই লিখলাম। যেদিন থেকে আর কাজের লেখা লিখতে পারব না, সেদিন থেকে আর লিখব না। কথা দিলাম আপাতত এই বন্ধুটির অত্যাচার মেনে নিন।
একটা বিনীত অনুরোধ। বিসিএস পরীক্ষার প্রস্তুতিকৌশল নিয়ে আমাকে ফোনে কিংবা ইনবক্সে দয়া করে নক করবেন না। আমি খুবই বিরক্ত হই। কারণ, এই বিষয় নিয়ে আমার চাইতে বেশি কেউ লিখেছেন, কিংবা কাজ করেছেন বলে আমার জানা নেই। সেসব লেখা কষ্ট করে আমার নোটস্ থেকে খুঁজে বের করে পড়ে নেবেন।
ওসব লেখায় যা বলেছি, এর বাইরে আর কিছুই আমি জানি না, বুঝি না। যদি আপনার হাতে সময় থাকে, ইউটিউবে আমার ক্যারিয়ার আড্ডার ভিডিওগুলি দেখে নেবেন, নিশ্চয়ই উপকৃত হবেন। এর বাইরে আপনাকে ব্যক্তিগতভাবে দেয়ার মতো সময় আমার নেই। আমার অক্ষমতাকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।
৩০ তারিখ পরীক্ষা। গুনেগুনে হাতে আর ১০ দিন। আগে যা-ই পড়ে থাকুন, কিংবা না থাকুন না কেন, যদি এ সময়ে একেবারে জিরো থেকে প্রিপারেশন নেয়া শুরু করেন, তাহলে কি আপনার পক্ষে প্রিলি পাস করে রিটেনের পাসপোর্ট পাওয়া সম্ভব? এটা অনেকটাই নির্ভর করে তিনটি ফ্যাক্টরের উপর।
এক। আপনার আত্মবিশ্বাস।
দুই। আপনার বেসিক নলেজ।
তিন। আপনার প্রচণ্ড পরিশ্রম করার মানসিকতা। একটু ভেঙে বলছি। প্রথমটি যারা পরীক্ষায় ভাল করে, তাদের ভাল রেজাল্টের জন্য যতটা না প্রস্তুতির ভূমিকা, তার চাইতে অনেকবেশি ভূমিকা ‘আমি অবশ্যই পারবো’ এই মাইন্ড সেটআপের। যেকোনো প্রতিযোগিতায়ই বিজয়ী আর পরাজিতের মধ্যে মূল পার্থক্যটা তৈরি করে দেয় আত্মবিশ্বাস।
বলতে পারেন, যারা আগে তেমনকিছু পড়েননি, তারাও কেন আত্মবিশ্বাসী থাকবেন? থাকবেন, কারণ ভাল প্রস্তুতি নিলেই যেমন প্রিলিপাস করা যায় না, ঠিক তেমনি খারাপ প্রস্তুতি নিলেই প্রিলিফেইল করা যায় না। আসলে, ভাল প্রস্তুতি খারাপ প্রস্তুতি বলে কিছু নেই। যা আছে, তা হলো, পরীক্ষা ভাল দেয়া, কিংবা খারাপ দেয়া।
লোকে পারে তখনই যখন সে মন থেকে বিশ্বাস করে, সে ওই কাজটি পারে। এ বিশ্বাসের পরিমাণ যার যত বেশি, তার পারফরম্যান্স তত বেশি ভাল। জানি, এই সময়টাতে, সাফল্যের জন্য আত্মবিশ্বাস জরুরি, নাকি, আত্মবিশ্বাসী হওয়ার জন্য আগে সফল হওয়াটা জরুরি—এই ধন্দে আছেন। সবাইই থাকে।
আপনি ব্যতিক্রম কিছু নন। তবে এর মধ্যেও যে নিজেকে অসীম ধৈর্যে ধরে রাখতে পারে, সে-ই ব্যতিক্রম, সে-ই নিশ্চিতভাবে এগিয়ে যাবে।
দ্বিতীয়টি। আপনি যে যে বিষয় ভাল পারেন আগে থেকেই, সেগুলিকে আপনি প্রিলিপাস করার মূল অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করুন। আমি আমারটা বলি। যদি এই লেখাটি যখন লিখছি, ঠিক সে মুহূর্তেও প্রিলি পরীক্ষা দিতে বসি, প্রশ্ন যেমনই হোক না কেন, আমি পাস করবোই। আগের বাক্যে ক্রিয়া পদের সাথে ‘-ই’ প্রত্যয় যোগ করে দিয়েছি প্রত্যয়ের সাথে।
কেন? কোন অসীম আত্মবিশ্বাসে? বলছি। আমি যেকোনো পরীক্ষায় বসার আগেই ঠিক করে নিই, আমার তুরুপের তাস কোনটা কোনটা। প্রিলির কথা যদি ধরি, তাহলে আমি যা যা করবো, বলছি। গাণিতিক যুক্তি যে কয়টি প্রশ্ন আসবে, তার সবকটারই সঠিক উত্তর করতে পারবো (বড়োজোর ১টা ভুল হতে পারে)।
মানসিক দক্ষতায় ভুল হবে বড়োজোর ৩-৪টা। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অংশে ভুল হবে হয়তো ৪-৫টা। ইংরেজিতে ৮০% নম্বর পাওয়ার কথা। বাংলায় অন্তত ৬৫%। বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়াবলিতে ৩৫% তো রামছাগলও পাবে। গতানুগতিক ধাঁচের প্রশ্ন হলে মোটামুটি এরকমই হবে মনে হয়। প্রশ্ন কঠিন হলেও কোনো অসুবিধে নেই।
সে ক্ষেত্রে তো কাটমার্কসও কমে আসবে। এইতো! প্রিলিতে পাস করে ফেলার কথা তো এভাবে পরীক্ষা দিলে, তাই না? আপনার হাতে যে কদিন আছে সামনে, সে কদিনে আপনি যে ৪টি সেগমেন্ট ভাল পারেন, সেগুলিতে বেশি এফর্ট দিন। সবসময়ই মাথায় রাখবেন, অনলি ইয়োর রেজাল্ট ইজ রিওয়ার্ডেড, নট ইয়োর এফর্টস্। তাই এফর্ট দেবেন অবশ্যই অবশ্যই রেজাল্ট-ওরিয়েন্টেড উপায়ে।
তৃতীয়টি। আপনাকে এ কদিন অমানুষিক পরিশ্রম করতে হবে। যদি চাকরিটা সত্যিই আপনার প্রয়োজন হয়, তবে আপনি এ কদিন দৈনিক ১৭ ঘণ্টা করে পরিশ্রম করতে পারবেন।
কলকাতার অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে প্রশংসাসূচক যা-ই কিছু বলি না কেন, কম বলা হয়ে যাবে। উনি যদি অভিনয় শিল্প আর লেখার প্রতি প্যাশন থেকে এই ৮১ বছর বয়সে দৈনিক ৮-৯ ঘণ্টা শুটিং করার পর আবার ৪-৫ ঘণ্টা লেখালেখি করতে পারেন, তবে আপনি মাত্র ২৭-২৮ বছর বয়সে, তাও মাত্র ১০টা দিন দৈনিক গড়ে ১৭ ঘণ্টা পড়াশোনা করতে পারবেন না?
আমাদের প্রাক্তন জাতীয় অধ্যাপক কবীর চৌধুরী একজন প্রথিতযশা শিক্ষাবিদ, প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক ছিলেন। ৮৮ বছর বয়সে তিনি মারা যান। মৃত্যুর দিন কিংবা এর আগের দিনও (আমার ঠিক মনে নেই) তিনি ৩০ পৃষ্ঠা অনুবাদ করেছিলেন। খ্যাতনামা বাঙালি মননশীল লেখক ও বিশিষ্ট চিন্তাবিদ নীরদচন্দ্র চৌধুরীর শেষ বই ‘থ্রী হর্সম্যান অব দ্য নিউ এপোক্যালিপস’ যখন প্রকাশিত হয়, তখন তাঁর বয়স ৯৯ বছর। জীবদ্দশায় উনি বই পড়েছিলেন প্রায় ১০ হাজার। জীবনে অতি পরিশ্রমের কারণে তাঁর যে ক্ষতিটি হয়েছিল, তা হলো, উনি উনার ১০২তম জন্মদিনের দু’মাস পূর্বে ‘অকালপ্রয়াত’ হয়েছিলেন।
তিনটি উদাহরণই বরেণ্য বাঙালির। উনাদের শারীরিক গঠন আপনার আমার চাইতে অনেক মজবুত ছিল না। তবে মানসিক গঠন শতগুণে মজবুত ছিল। চাকরিটা আপনার যত বেশি দরকার, আপনি তত বেশি মানসিকভাবে তৈরি থাকবেন পরিশ্রম করতে, এটা আমি বিশ্বাস করি। মানুষ টায়ার্ড হয় যতটা না শারীরিক কারণে, তার চাইতে অনেকবেশি মানসিক কারণে।
কই, পড়াশোনা করতে করতে একেবারেই ক্লান্ত পরিশ্রান্ত আমাকে কেউ যদি শপিং-এ যেতে বলে, ঘুরতে যেতে বলে, ডেটিং-এ যেতে বলে, আমার সকল ক্লান্তি তো এক নিমিষেই পালিয়ে যায়! এটা ফাজলামো ছাড়া আর কী? লাইফের সাথে আপনি যত বেশি ফাজলামো করবেন, লাইফও আপনার সাথে তত বেশি ফাজলামো করবে।
মাথায় রাখুন, সামনের ১০ দিনে আপনাকে মোট ১৭০ ঘণ্টা পড়াশোনার পেছনে ফাঁকিবাজি না করে ঠিকভাবে দিতে হবে। আপনি প্রিলিপাস করে যাবেন এটা করতে পারলে, আগে যদি কিছু না পড়েও থাকেন। ব্যস্!
এখন পর্যন্ত আপনার প্রস্তুতি যেরকমই হোক না কেন, সামনের এই ১০টা দিন আপনি যা যা করতে পারেন (আমার ব্যক্তিগত অভিমত অনুসারে), এবং যা যা এড়িয়ে চলতে পারেন, লিখে দিচ্ছি:
এক। বাজারের যেকোনো একটা ভাল মডেল টেস্টের গাইড কিনে প্রতিদিন ৫ সেট করে মডেল টেস্ট দিন। প্রতি সেট প্রশ্নের উত্তর দাগাতে সময় নেবেন বড়োজোর সোয়া এক ঘণ্টা। কারণ, পরীক্ষার হলে আপনাকে বৃত্ত ভরাট করতে হবে, সেটাতে কিছু বাড়তি সময় লাগবে।
তাছাড়া পরীক্ষার হলে টেনশনও কাজ করবে, যা আপনার বৃত্ত ভরাটের গতিকে কিছুটা হলেও মন্থর করে দিতে পারে। পরীক্ষার সময় টেনশনে থাকাটা একটা সাধারণ শিষ্টাচার। ব্যাপার না! এই ১০ দিন পারতপক্ষে আপনার পড়ার রুম থেকেই বের হবেন না।
দুই। খুব বেশি প্রয়োজন না হলে কারোর ফোনই রিসিভ করবেন না। কেউ অসুস্থ হলে, কিংবা আপনার একেবারেই কাছের কেউ অতি প্রয়োজনে ফোন করলে রিসিভ করবেন। আপনার প্রেমিকা অন্য কারোর হাত ধরে পালিয়ে যাচ্ছে? যেতে দিন। ও পরে এমনিতেই পালাত। প্রেমিকা পালিয়ে যাওয়ার দৃশ্য পৃথিবীর সবচাইতে সুন্দর স্বাভাবিক চিরন্তন দৃশ্যগুলির একটি। যত আগে পালায়, ততই মঙ্গল। শুকরিয়া!
এ কদিন এসব নিয়ে ভাববার সময় নেই আপনার। কারোর সাথে নিতান্ত জরুরি না হলে দেখা করারও দরকার নেই। ঠিকমতো পড়াশোনা করলে এই সময়টাতে আপনার চাঁদমুখখানা প্যাঁচামুখ হয়ে যাওয়ারই কথা। তাই, মানুষের সামনে গিয়ে ভয় না দেখিয়ে দরোজা জানালা বন্ধ করে পড়াশোনা করলেই তো বেটার, তাই না?
আপনার চেহারা খারাপ, তাই বলে তো আর আপনি লোকজনকে ভয় দেখাতে পারেন না! ওটা অন্যায়, চেহারা বাজে হওয়াটা অন্যায় নয়। মোবাইল ফোন, টিভি, ফেসবুক, ইমো, ভাইবার, হোয়াটসআপ এসবকে দিন এই ১০ দিন ছুটি, বেকারত্বের রাজ্যে পৃথিবী যন্ত্রণাময়। নিষ্ঠুর পৃথিবী বেকারদের মিষ্টি রোমান্টিক হাসিও সহ্য করে না।
তিন। ভাল ১টা প্রিলির ডাইজেস্ট পুরোটা খুব দ্রুত পড়ে ফেলুন। বিভিন্ন প্রিলি স্পেশাল সংখ্যা সলভ করুন। আগের বছরের প্রশ্নসমৃদ্ধ প্রিলির প্রশ্নব্যাংক আর ১টা জব সল্যুশন রিভিশন দিন।
বলতে পারেন, প্রশ্ন যদি গতানুগতিক ধাঁচের না হয়, তবে? আমি বলি কী, যেহেতু আগে থেকে রেফারেন্স বইটাই উল্টাপাল্টা, হাজার হাজার প্রশ্ন সলভ্ করতে অনেকবেশি পড়াশোনা করেননি, সেহেতু ফাঁকিবাজির এইটুকু শাস্তি তো মেনে নিতেই হবে। মজার ব্যাপার হলো, মূলত নার্ভাসনেস ফ্যাক্টরের কারণে, পরীক্ষার হলে সবারই মেন্টাল স্টেট কমবেশি একইরকমের থাকে।
অর্থাৎ, মনস্তাত্ত্বিক বিশ্লেষণে, আপনি কারোর চাইতেই পিছিয়ে নন। প্রশ্ন সহজ হবে, কী কঠিন হবে, এ নিয়ে ভাবা মানেই স্রেফ সময় নষ্ট করা। প্রশ্ন সহজ বা কঠিন হওয়ার উপর তো আপনার হাত নেই। যেটার উপর আপনার কোনো হাত নেই, সেটা নিয়ে ভেবে ভেবে সময় নষ্ট না করে পড়াশোনা করুন।
প্রশ্ন কঠিন হলে সবার জন্যই কঠিন, সহজ হলে সবার জন্যই সহজ। সবার যে গতি, আপনারও একই গতি। আপনি তো আর বিশেষ কোনো গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি নন যে, আপনার জন্য আলাদা কোনো কাটমার্কস হিসেব করা হবে।
চার। বিষয় ধরে ধরে নয়, প্রশ্নের সেট ধরে ধরে পড়ুন। কীরকম? ধরুন, আপনি বাংলা পড়বেন। ঠিক আছে, পড়ুন। কিন্তু শুধু বাংলাই পড়তে থাকার মতো সময় এখন আর নেই। এতে কোনো না কোনো বিষয়ের উপর কম জোর দেয়া হয়ে যেতে পারে। আপনি এই সময়টাতে জব সল্যুশন, প্রিলি ডাইজেস্ট, আর প্রশ্ন ব্যাংকের পূর্ণাঙ্গ প্রশ্নের সেট ধরে ধরে যত বেশি সংখ্যক সম্ভব, তত বেশি সংখ্যক প্রশ্নের সেট পড়ে ফেলুন।
আলোচনা অংশ পড়বেন না। দরকার নেই। বেশি বেশি প্রশ্নের সেট পড়ে ফেললে, আপনি দেখবেন, কিছু কিছু প্রশ্ন বারবার আসে। সেগুলি বারবার দেখতে দেখতে মাথায় সেগুলির একটা ফটোকপি তৈরি হয়ে যায় আপনাআপনিই। কোনো বিষয়ের উপর আলাদা করে সময় দেয়ার দরকার নেই। কেউ যদি ওটা করেন, তবে আপনি সুষম প্রস্তুতি নিতে পারবেন না।
পাঁচ। সাধারণ জ্ঞানে জোর দিন সবচাইতে কম। যদি কমন প্রশ্ন আসে, এমনিতেই পারবেন। যদি একেবারে উদ্ভট আনকমন প্রশ্ন আসে, যতই প্রস্তুতি নিন না কেন, পারবেন না। অথচ, ম্যাথস্, গ্রামার সহ আরও কিছু টপিক আছে, যেগুলিতে বেসিক ভাল হলে, প্রশ্ন কঠিন হলেও সঠিক উত্তর করা সম্ভব। এই ১০ দিনে পেপার পড়ার আর খবর শোনার কোনো দরকার নাই। পৃথিবীতে প্রলয় ঘটে গেলে কোনো না কোনোভাবে এমনিতেই জানতে পারবেন।
ঐশ্বরিয়া কেন এ বয়সেও আবেদনময়ী, সে প্রশ্নের রগরগে উত্তর জেনে জ্বালা বাড়ানোর সময় প্রিলিটা শেষ হয়ে গেলে যথেষ্টই পাবেন। আপাতত অফ যান!
ছয়। ৬.১ যে প্রশ্নগুলি বেশিই কঠিন, বারবার পড়লেও মনে থাকে না, সেগুলিকে নিজগুণে ক্ষমা করে দিন। সহজ প্রশ্ন মাথায় সুন্দর, কঠিন প্রশ্ন বইয়ে। একটা অতি কঠিন প্রশ্ন মনে রাখার চেষ্টা ৫টা সহজ প্রশ্নকে মাথা থেকে বের করে দেয়। মার্কস তো একই, কী দরকার? ১ নম্বরের মোহে ৫ কিংবা ৭.৫ নম্বর হারানোর বিলাসিতা করার সময় এখন নয়।
৬.২। কনফিউজিং প্রশ্ন দাগাবেন কিনা? এর উত্তরটা একটু ঘুরিয়ে দিই। ৮টা কনফিউজিং প্রশ্ন ছেড়ে এসে শূন্য পাওয়ার চাইতে ৮টাই দাগিয়ে অর্ধেক ভুল করে ২ পাওয়া তো ভাল, তাই না? কনফিউজিং প্রশ্ন দেয়াই হয় আপনার বৃত্ত ভরাট করার গতিকে শ্লথ করে দেয়ার জন্য।
৬.৩। যে প্রশ্নগুলি ভুল থাকে, সেগুলি দাগালেও নম্বর পাবেন, না দাগালেও নম্বর পাবেন। পিএসসি সেগুলি বাদ দিয়ে খাতা দেখে, মানে সেগুলিতে সবাইকেই অ্যাভারেজ নম্বর দিয়ে দেয় বলেই জানি।
৬.৪। কিছু প্রশ্নের একাধিক উত্তর থাকে। সেগুলিতে কী করবেন? যেকোনো একটা সঠিক উত্তর দাগালেই নম্বর পাবেন। ভুল উত্তর কিংবা একাধিক উত্তর আছে, এমন প্রশ্ন পিএসসি কেন দেয়? ওরা অসতর্ক দায়িত্বজ্ঞানহীন উদাসীন বলে? কোনোভাবেই না! এগুলি দেয়াই হয় ইচ্ছে করে, আপনাকে কনফিউসড আর নার্ভাস করে দেয়ার জন্য।
আপনি কনফিউসড আর নার্ভাস হয়ে যাওয়ার মানেই হলো, আপনার কনফিডেন্স কমে যাওয়া। আর এর মানেই হলো, ওই ২ ঘণ্টা আপনার নয়! প্র্যাকটিস তো সবাইই করে, কিন্তু ফিল্ডে থাকার সময়টা অন্য কারোর হয় না, টেন্ডুলকারের হয়। কেন? প্রিপারেশনের জন্য? স্কিলের জন্য? না। কনফিডেন্স আর টেকনিকের জন্য। ফিল্ডে সেই রাজা, যে রাজার মতো খেলতে পারে। ওরকম করে খেলতে হলে রাজার হৃদয়ের দরকার হয়।
সাত। কে কী পড়ছে, কী কী প্রশ্ন পড়া উচিত, এসব ফালতু খবর নেয়ার দরকার নাই। আপনি এই ১০দিনে বিসিএস নিয়ে কারোর সাথেই একটি কথাও বলবেন না। কে কী করছে, তাতে আপনার কী? দিনশেষে আপনার সকল সফলতা আর ব্যর্থতার দায়ভার সম্পূর্ণই আপনার নিজের। লাইফটা ডেসটিনি কোম্পানি না, লাইফ ‘টুগেদার উই বিল্ড আওয়ার ড্রিম’ নীতিতে চলে না।
সাকসেস ইজ অ্যা সেলফিশ গেইম, সো ইজ ফেইলিয়্যুর। আপনি যা পারেন, আপনার ভালোর জন্যই পারেন; যা পারেন না, আপনার ভালোর জন্যই পারেন না। আপনার একটা ৫ দরকার; সেটা আড়াইয়ে আড়াইয়ে হোক, দুইয়ে তিনে হোক, তিনে দুইয়ে হোক, একে চারে হোক, চারে একে হোক, শূন্যে পাঁচে হোক, আর পাঁচে শূন্যতেই হোক, যেভাবেই হোক না কেন, হলেই তো হলো। কীভাবে হলো, সেটার রহস্য আপনার না জানলেও চলবে। বিশ্বাস রাখুন, আপনার প্রয়োজনীয় সংখ্যাটি আপনি পাবেনই। সেটার জন্য কারোর মুখাপেক্ষী আপনাকে হতে হবে না।
আট। বেশিরভাগ সময়ই, কোচিং সেন্টার, ক্যাম্পাস-লাইব্রেরি আর মুখেমুখে হিরো, পরীক্ষার হলে জিরো। যুদ্ধের আগে হিরো হয়ে কী লাভ? যুদ্ধে আর যুদ্ধের পর যেন হিরো হতে পারেন, সে প্রস্তুতি নিন। যারা পরীক্ষার আগেই বেশি পকপক করে, তারা পরীক্ষার রেজাল্ট বের হওয়ার পর পালিয়ে মুখ লুকানোরও জায়গা খুঁজে পায় না। রেজাল্ট সবসময়ই খেলার শেষে, আগে নয়!
নয়। ২৯ তারিখ রাত ৮টার পর থেকে আর না পড়লেই ভাল। সেসময় হাল্কা কিছুতে, যা আপনার ভাল লাগে, ডুব দিন। সফট ইন্সট্রুমেন্টাল, মুভি, মিউজিক, যা-ই হোক। পরেরদিনের জন্য পরীক্ষার হলের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র গুছিয়ে রাখুন। রাতে হাল্কা খাবার খেয়ে ১০টার মধ্যেই ঘুমিয়ে পড়ুন। অন্তত ৮ ঘণ্টা ঘুমাবেন। রাতে কম ঘুমালে পরেরদিন পরীক্ষা খারাপ হওয়ার সম্ভাবনা খুব খুব বেশি।
দশ। পরদিন সকালে উঠে কিছুক্ষণ প্রার্থনা করুন। এরপর ফ্রেশ হয়ে ব্রেকফাস্ট করে (বেশি খাবেন না, এতে উচ্চশিক্ষার্থে কিংবা হুদাই কোনো কারণ ছাড়া বাথরুমে যেতে ইচ্ছে করতে পারে। পরীক্ষার চলাকালীন বাথরুমে যায় দুই ধরনের মানুষ। এক। বেকুবরা, টয়লেটের এবং এর আশেপাশের নৈসর্গিক দৃশ্য অবলোকন করতে। দুই।
অসহায়রা, যাদের আসলেই বাথরুম পেয়েছে।) হাতে যথেষ্ট সময় নিয়ে (কোনো বইপত্র নিয়ে নয়) হলের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হয়ে যান। বাসা থেকে বের হওয়ার আগে আরও একবার দেখে নিন, প্রয়োজনীয় সবকিছু সাথে নিয়েছেন কিনা।
এগারো। উত্তরপত্রে সেট কোড সহ অন্যান্য তথ্য ঠিকভাবে ঠাণ্ডামাথায় পূরণ করুন। এটা ভুল হলে সব শেষ।
বারো। আপনি যে অংশটি সবচাইতে ভাল পারেন, সেটি আগে উত্তর করা শুরু করবেন। তবে এক্ষেত্রে কত নম্বর প্রশ্নের উত্তর করছেন আর কত নম্বর উত্তরের বৃত্তটি ভরাট করছেন, সেটি খুব সতর্কভাবে মিলিয়ে নেবেন। সব প্রশ্নই উত্তর করার জন্য নয়। লোভে পাপ, পাপে নেগেটিভ মার্কস। সাধারণত যেকোনো বিষয় নিয়ে ২য় ভাববার সময় আমাদের দক্ষতা বৃদ্ধি পায়। প্রথম দেখায় যে প্রশ্নগুলির উত্তর পারেন না মনে হবে, সেগুলি মার্ক করে পরেরটায় চলে যাবেন। পরীক্ষার হল গবেষণাগার নয়। সময় নষ্ট করার সময় নেই।
তেরো। বৃত্ত ভরাট করতে করতে ক্লান্ত? একটু ব্রেক নিন। চাকরিটা পেয়ে গেলে আপনার জীবনটা কীভাবে বদলে যাবে, কাছের মানুষগুলির হাসিখুশি মুখগুলি একবার কল্পনায় আনুন; ক্লান্তি কেটে যাবে। পরীক্ষার হলে যে ভাবনাটা সবচাইতে বেশি ম্যাজিকের মতো কাজ করে, সেটি হল ‘আই অ্যাম দ্য বেস্ট’ ভাবনা। আপনার চাইতে ভাল পরীক্ষা কেউই দিচ্ছে না, এটা বিশ্বাস করে পরীক্ষা দিন। অন্যকিছু মাথায় আনলে আপনার ক্ষতি ছাড়া লাভ কিছুই হবে না।
চৌদ্দ। কয়টা দাগালে পাস, এমন কোন নিয়ম নেই। আপনি যেগুলি পারেন, সেগুলির উত্তর করবেন। কোন প্রশ্নেই বেশি গুরুত্ব দেবেন না। সহজ কঠিন সব প্রশ্নেই ১ নম্বর। আপনার আশেপাশে কে কয়টা দাগাচ্ছে, কোনটা দাগাচ্ছে, সেদিকে তাকাবেন না। এতে আপনি ১ নম্বরের লোভে বেশ কিছু জানা প্রশ্ন ভুল দাগাতে পারেন।
কারোর দিকেই না তাকিয়ে আপনি নিজে যা পারেন, তা-ই উত্তর করুন। অবশ্য, আপনি না তাকালেও আপনার অজানা কিছু প্রশ্নের উত্তর গায়েবি হাওয়ায় ভেসে ভেসে প্রবেশ করবে কানের গহীনে। সেগুলিকে গ্রহণ করবেন, কী বর্জন করবেন, সে সিদ্ধান্ত ওই মুহূর্তের আইকিউই বলে দেবে।
সামনের ১০ দিনে আপনার জীবনের অন্তত ৩০ বছরের ইতিহাস লেখা হয়ে যেতে পারে। সে ইতিহাস আনন্দের, নাকি বেদনার, সেটা নির্ধারণ করার ৯৫% ক্ষমতাই এই মুহূর্তে আপনার হাতে। আপনি সেটাকে কীভাবে কাজে লাগাবেন, কিংবা কাজে লাগাবেন না, সেটা পুরোপুরিই আপনার ব্যক্তিগত ব্যাপার। আমি শুধু আমার নিজের মতামত বললাম এতক্ষণ।
জীবনটা আপনার, সে জীবনটা কাটানোর কায়দাও আপনিই ঠিক করবেন। যত বড় বিসিএস পণ্ডিতই হোক না কেন, পরীক্ষার হলে পরিবেশ, মানসিক অবস্থা, এবং আরও কিছু পারিপার্শ্বিক কারণে উনার এবং অন্য সবার লেভেলই মোটামুটি একই জায়গায় থাকে। পরীক্ষা শুরুর ঘণ্টা
বাজবে, আপনিও জিরো থেকে শুরু করবেন, বাকিরাও জিরো থেকে শুরু করবেন। কেউই কারোর চাইতে কোনো অংশে কম না! সেই জিরোকে ২ ঘণ্টায় কে কতদূর নিয়ে যেতে পারে, তা দিয়েই ঠিক হয়ে যাবে, কে জিতবে, কে ছিটকে পড়বে! যুদ্ধে নামুন, দেখা হবে! অপেক্ষায় রইলাম।
সুশান্ত পাল

Ministry Of Fisheries & Livestock Job Circular-2016

Ministry Of Fisheries & Livestock Job Circular-2016

Ministry Of Fisheries & Livestock job details are given below:

Company : Ministry Of Fisheries & Livestock
Positions: Please view the circular
No. of vacancy: Please view the circular
Qualification: Please view the circular
Salary: Please view the circular
Published Date: September 20, 2016
Deadline: October 20, 2016




Rajshahi University Job Circular-2016

Rajshahi University Job Circular-2016

Rajshahi University job details are given below:

Company : Rajshahi University
Positions: Please view the circular
No. of vacancy: Please view the circular
Qualification: Please view the circular
Salary: Please view the circular
Published Date: September 20, 2016
Deadline: October 23, 2016




গে্লাব ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি



গে্লাব ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

Job Prothom Alo

20 September, 2016

Deadline: 1 October, 2016







প্রমি এগ্রো ফুডস লিঃ এ ১৩০টি পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি



প্রমি এগ্রো ফুডস লিঃ এ ১৩০টি পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

Job Bangladesh Pratidin

19 September, 2016

Deadline: 24 September, 2016







পাওয়ার গ্রীড কোম্পানী অব বাংলাদেশ এ চাকুরির সুযোগ




পাওয়ার গ্রীড কোম্পানী অব বাংলাদেশ এ চাকুরির সুযোগ

Job Daily Star

20 September, 2016

Deadline: 10 October, 2016





GETCO গ্রুপ এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি



GETCO গ্রুপ এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

Job Bangladesh Pratidin

20 September, 2016

Deadline: 30 September, 2016





খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতাল এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি


খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতাল এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি




Job Bangladesh Pratidin
20 September, 2016
Deadline: 31 October, 2016



LankaBangla Finance Ltd-এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

LankaBangla Finance Ltd-এ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি




LankaBangla Finance Limited (LBFL) is the fastest growing financial institution in Bangladesh operating its business through 18 (eighteen) branches across the country. LankaBangla Finance has set new benchmark by showing outstanding business growth for the last 3 (three) years in all of its operational areas of Corporate, Retail, SME and Liability Management. LBFL has also got strong presence in the capital market through its subsidiaries – LBFL Securities, LBFL Investments and LBFL Asset Management Company. It has strong corporate governance and as a testimony to that, LBFL won South Asian Federation of Accountants (SAFA) Award for Best Presented Annual Report in 2014, SAFA – an apex body of SAARC.
To strengthen its continuous business growth and operational efficiency, LBFL is currently looking for target driven, smart and career oriented enthusiastic individuals for its Branch Operations:
Head of Branch
(Grade: Senior Manager/Manager)
Job Location: Chowmuhani, Noakhali
KEY RESPONSIBILITIES
  • Achieve set targets both in terms of asset and liability (Corporate/Retail/SME).
  • Increase the customer base
  • Provide friendly and responsive customer service by using skills for excellent customer service.
  • Handling customer complaints in a positive manner and converting complaints into service improvement Opportunities.
  • Analyze the patterns of customer’s changing needs of financial services and recommend/suggest ways to tackle those.
  • Ensure the premises and security services in the branch.
  • Approve of the all kinds of TDR, DPS opening, closing and modification of the accounts.
  • Ensure all voucher is being checked on regular basis and matched with Central Account Service.
  • To act as Branch Anti Money-Laundering Compliance Officer (BAMLCO).
  • Ensure that any or all expenses for the branches are processed as per policy and with due diligence.
KEY QUALIFICATIONS
  • Minimum Graduate (preferably in the field of Business Studies )
  • At Least 5 years’ experience in Branch Operations including SME Business Operations in Banking/Non-Banking Financial Institutions.
  • Must have strong knowledge in SME Banking, Branch Management, Business Development, Relationship Management, Leadership Capability and be highly committed to customer services.
  • Strong communication, problem solving and interpersonal skills.
Only short listed candidates will be called for the interview through standard recruitment process. LBFL reserves the right to accept or reject any application without assigning any reason whatsoever.
If you believe that you are the person we are looking for, then please email your Résumé at: career@lankabangla.com or send your Résumé with a recent passport size photograph to Human Resources Division, LankaBangla Finance Limited, Safura Tower (Level 11), 20 Kemal Ataturk Avenue, Banani, Dhaka-1213.
Application Deadline: October 05, 2016

শিক্ষক নিয়োগে অনিশ্চয়তা: গ্যাঁড়াকলে NTRCA!

শিক্ষক নিয়োগে অনিশ্চয়তা: গ্যাঁড়াকলে NTRCA!






বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় এন্ট্রি লেভেলে শিক্ষক নিয়োগ গত বছরের ২২ অক্টোবর থেকে বন্ধ রয়েছে। নতুন বিধিমালা অনুসারে ম্যানেজিং কমিটি বা গভর্নিং বডির বদলে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) শিক্ষক নিয়োগের  জন্য প্রার্থী বাছাইয়ের পরীক্ষা নেয়া ও নিয়োগের সুপারিশ করার ক্ষমতা পেয়েছে। কিন্তু পুরনো নিবন্ধনধারীদের নিয়োগ ও ১৩তমদের  পরীক্ষা  ও ফলাফল প্রকাশ নিয়ে গ্যাঁড়াকলে পড়েছে তারা। নিয়োগ দিতে না পারায় ব্যাহত হচ্ছে পড়াশোনা।
এরই মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ২১ অক্টোবরের আগে প্রক্রিয়া শুরু করা এন্ট্রি লেভেলে নিয়োগ দিতে চলতি বছরের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বাড়িয়ে দেয়ায় ধোয়াশা বেড়েছে বলে মনে করছেন প্রার্থীরা।
নিবন্ধন কর্তৃপক্ষ আইনের সংশোধিত বিধিমালা অনুযায়ী নিয়োগের ক্ষেত্রে বেশ কিছু জটিলতা দেখা দিয়েছে। বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকের চাহিদার তথ্য চেয়েছে এনটিআরসিএ। যেসব স্কুল এমপিওভুক্ত নয়, তারাও চাহিদা জানিয়েছে। আবার প্রার্থীরা না বুঝে এমপিওভুক্ত নয় এমন অনেক স্কুলের জন্য আবেদন করেছেন। এখন পর্যন্ত দ্বাদশ শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা শেষ হয়েছে। উত্তীর্ণ প্রার্থী প্রায় সাড়ে চার লাখ। তাঁদের তিন লাখেরও বেশি জনের এখনো চাকরি হয়নি। দশম নিবন্ধন পর্যন্ত সনদের মেয়াদ ছিল আজীবন। ফলে একজন প্রার্থীর ৫৯ বছর পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত চাকরি পাওয়ার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু একাদশ নিবন্ধন থেকে মেয়াদ মাত্র তিন বছরের। ত্রয়োদশ নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষা শেষ হয়েছে। এবার থেকে যতগুলো পদ শূন্য থাকবে ততজনকে উত্তীর্ণ করা হবে। তাহলে দ্বাদশ নিবন্ধন পরীক্ষা পর্যন্ত উত্তীর্ণরা কি আর চাকরির সুযোগ পাবেন না? এ ধরনের নানা জটিল হিসাব-নিকাশের গ্যাড়াঁকলে পড়েছে এনটিআরসিএ।
আবেদনকারীরাও উত্কণ্ঠায় রয়েছেন। জান্নাতুল ফেরদৌস নামের এক প্রার্থী বলেন, ‘নিয়োগ প্রক্রিয়ায় জটিলতা রয়েছে। ফল প্রকাশের নির্দিষ্ট দিনক্ষণ নেই। আমরা কত দিন অপেক্ষা করব?’ তিনি বলেন, ‘যদি উপজেলা কোটায় নেওয়া হয়, তাহলে আগেই কেন উপজেলা মেধাতালিকা প্রকাশ করা হলো না? আমি ১০টি আবেদন করেছি। প্রতিটিতে ১৮০ টাকা খরচ হয়েছে। উপজেলা মেধাতালিকা জানা থাকলে এত টাকা খরচ হতো না।’
জানা যায়, ১৫ হাজার পদের জন্য গত জুলাই মাসে ১৩ লাখ আবেদনপত্র জমা পড়ে। কিন্তু নিয়োগপ্রক্রিয়া শেষ করতে পারছে না এনটিআরসিএ।  এক বছর ধরে নিয়োগ বন্ধ থাকায় এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক সংকট চরমে পৌঁছেছে। ব্যাহত হচ্ছে লেখাপড়া। আগে শিক্ষক নিয়োগ দিত স্কুল ম্যানেজিং কমিটি বা গভর্নিং বডি। তাদের বিরুদ্ধে টাকার বিনিময়ে অদক্ষ শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়ার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগের জন্য একেকজনকে দিতে হতো সাত থেকে ১০ লাখ টাকা। এ জন্যই বিধিমালা সংশোধন করে এনটিআরসিএর কাছে নিয়োগের ক্ষমতা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সবাই এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানায়। কিন্তু বিপুলসংখ্যক আবেদনপত্র নিয়ে গ্যাড়াঁকলে পড়েছে এনটিআরসিএ।
এনটিআরসিএর চেয়ারম্যান এ এম এম আজহার বলেন, ‘১৩ লাখ আবেদনপত্রের ডাটা প্রসেসিংয়ে সময়ের দরকার। দিনক্ষণ ঠিক করে  বলতে পারব না কবে নিয়োগপ্রক্রিয়া শেষ হবে।’
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নিবন্ধন কর্তৃপক্ষের একাধিক সূত্র জানায়, গত জুনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে শিক্ষকের চাহিদার তথ্য নেয় এনটিআরসিএ। জুলাইয়ে অনলাইনে আবেদনপত্র চাওয়া হয়। ১৫ হাজার পদের জন্য ১৩ লাখ আবেদনপত্র জমা পড়ে। আবেদনপত্র যাচাই-বাছাই নিয়েই হ-য-ব-র-ল অবস্থা। তারা বলেন, একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদনপত্র যাচাই-বাছাইয়ে যে সফটওয়্যার ব্যবহার করা হয়, শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রেও একই রকম সফটওয়্যার ব্যবহৃত হওয়ার কথা। ওই সফটওয়্যার সাত-আট দিনের মধ্যে ৩০ লাখের বেশি আবেদনপত্র যাচাই-বাছাই করে ফল দিতে পারে। অথচ এখানে আবেদনপত্র জমা পড়েছে মাত্র ১৩ লাখ। এর পরও দেড় মাস ধরে তাদের যাচাই-বাছাই চলছে।
অপর এক সূত্র জানায়, নিবন্ধন অফিসের কর্মকর্তাদের অদক্ষতার কারণে প্রক্রিয়া শেষ হতে এত সময় লাগছে। প্রথমবারের মতো তারা  এত বড় পরীক্ষা ও নিয়োগ প্রক্রিয়ায় সংশ্লিষ্ট হয়েছেন। এর চেয়ারম্যান ও কর্মকর্তাদের কেউ আগে এ ধরনের প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না। চেয়ারম্যান একজন বি সি এস প্রশাসন ক্যাডার অফিসার। তিনি এর আগে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে চাকুরি করেছেন।
বাংলাদেশ অধ্যক্ষ পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ মোহাম্মদ মাজহারুল হান্নান জানান, ১৪ লাখ শিক্ষার্থীকে অনলাইনে কলেজে ভর্তিপ্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে বুয়েটের সহায়তা নেওয়া হয়। এ নিয়োগের কাজে আইটি বিশেষজ্ঞদের সহায়তা নেওয়া উচিত ছিল। তাহলে দ্রুত কাজ শেষ করা সম্ভব হতো।
এনটিআরসিএর পরিচালক মো. তৌহিদুর রহমান বলেন, ‘আমরা দ্রুততার সঙ্গে কাজ করার চেষ্টা করছি। ১৩ লাখ আবেদনকারীর তথ্য যাচাই-বাছাই করতে হচ্ছে। ভুল হলে বড় সমস্যা তৈরি হবে। চেষ্টা করছি চলতি মাসেই যাচাইয়ের কাজ শেষ করতে।’
বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও রাজধানীর মিরপুরের সিদ্ধান্ত হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. নজরুল ইসলাম রনি দৈনিকশিক্ষাকে বলেন, অনেক স্কুলে গণিত ও ইংরেজির শিক্ষকের পদ আট-দশ মাস ধরে শূন্য রয়েছে। সাধারণ বিষয়গুলো অন্য শিক্ষকরা পড়াতে পারলেও গণিত বা ইংরেজি সব শিক্ষক পড়াতে পারেন না। কোথাও খণ্ডকালীন শিক্ষক দিয়ে কোনোমতে কাজ চলছে। পড়ালেখা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে।
সূত্র: দৈনিক শিক্ষা




বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে বেসামরিক বিশাল জনবল নিয়োগ!

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে বেসামরিক বিশাল জনবল নিয়োগ!


আবেদনের শেষ সময়: ০৫ অক্টোবর ২০১৬






অফিসার পদে Modhumoti Bank Limited-এর বিশাল নিয়োগ

অফিসার পদে Modhumoti Bank Limited-এর বিশাল নিয়োগ


Application Deadline: 05.10.2016






বাংলাদেশ ক্যাডেট কলেজে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি


বাংলাদেশ ক্যাডেট কলেজে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি


প্রতিষ্ঠান: বাংলাদেশ ক্যাডেট কলেজ
পদ সংখ্যা: ১৩টি
অাবেদনের শেষ তারিখ: ২০ অক্টোবর, ২০১৬ ইং
বিস্তারিত…..



গ্রাম থেকে যাত্রা শুরু ও ১ম বারেই বিসিএস ক্যাডার হওয়ার গল্প!



জীবন সংগ্রামে অপরাজিত, ব্যক্তি স্বাদ-আহ্লাদহীন উচ্চমার্গীয় অক্ষরজ্ঞানী না হলেও এক শিক্ষিত মায়ের সন্তান আমি, সাথে শিক্ষিত এক বাবা। জীবনের উত্থান-পতনের নির্মম ঢেউ এ ভেসেছে আমার বাবা। মায়ের সংগ্রামী হাতে চালানো সংসারটির কোনোমতে “Survival” বিকল্প না থাকায় শাক-শব্জী ও ডাল-ভাত সবার প্রিয় খাবারই হয়ে ওঠে… (শুটকী মাছ আমার বিশেষ প্রিয়!)
Despite all these, It is my father who is the HERO of my life. He is the real example of “SLIENCE IS GOLDEN”. I have learnt a new definition of SILENCE from him, the ESSENCE of my life.

ছাত্র/শিক্ষার্থী হিসেবে কখনই উত্তম/অধম ছিলাম না। মায়ের মুখের ‘হাট্টি মাট্টিম টিম’ থেকে প্রত্যন্ত নিবিড় গ্রামের এক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে “সেন্টু গেঞ্জি”র উপর আদর্শ লিপি, ধারাপাত, স্লেট দু’হাতে বুকে চেপে হাফ পেন্টের রাবারে এক টুকরো চকমাটি গুজে সেই খেলার সুরে শুরু, সাথে ভাল লাগা, আনন্দ… একটু পর আবেগ…. প্রত্যহ হারিকেনের চিমনি পরিস্কার করে( মাঝে মাঝে কুপি বাতি) সন্ধ্যার সাথে সাথেই পড়তে বসা। এরপর “আম পাতা জোড়া জোড়া, “তালগাছ”, “চল চল চল”, “আ’মরি বাংলা ভাষা,” “আমাদের ছেলে”, “কাজলা দিদি”, “সংকল্প”, “শিক্ষাগুরুর মর্যাদা” হয়ে “সবার আমি ছাত্র” দিয়ে প্রাইমারী শেষ।
সব সময় ক্রমিক নং ২/৩. ষষ্ঠ শ্রেণিতে “কোন স্কুলে ভর্তি হবো কি হবো না” করতে করতে মে মাসে বাড়ির কাছের স্কুলে ভর্তি হয়ে ১ম সাময়িক পরীক্ষায় গণিতে ২১ দিয়ে শুরু ৯৫ দিয়ে শেষ। নিজেদের ক্ষেতের ফসল পাহারা দেওয়ার জন্য তৈরি “ডেরা”য় বসে সপুষ্পক উদ্ভিদ মরিচ গাছের চিত্র এঁকে বিজ্ঞানের প্রতি ভালো লাগা খুঁজে পাওয়া। “রেখা” খাতায় ক্লাসের প্রতিদিনের হাতের লেখা জমা দিতে দিতে ইংরেজির প্রতি প্রেম। মাধ্যমিকে সব শ্রেণিতে প্রথম হয়ে ২০০৫’র এসএসসি তে স্কুলের সহপাঠীদের মধ্যে ভাল ফলাফল নিয়েই ভর্তি হলাম কলেজে, শেরপুর সরকারী কলেজ। কলেজে নিজেকে সাগরের “জলকণা” হিসেবে আবিষ্কার… সাথে বিদ্যুতের আলোয় প্রথম পড়তে বসা…মোহ, সংশয়, ভাল লাগায়- না লাগায়, গ্রাম ছাড়া শহরের সংস্কৃতিতে নিজেকে চিনতে না চিনতেই প্রথম বর্ষ শেষ, ২য় বর্ষে চিনতে পারলাম কিন্তু সময় পেলাম না। ফলাফল ২০০৭’র এইচএসসি তে সবার আশা ভেঙ্গে ৪.৫০।
পড়ালেখা নিয়ে জীবনে প্রথম মন খারাপ হল, কারণ ভালো করার সবই আমাকে দেওয়া হয়েছিল, আমিই পারি নি। আমি কি ভুলতে পারি আমাদের চার ভাই বোনের পড়ালেখার খরচ চালানোর জন্য আমার কৃষক বাবার স্বল্প আবাদি জমি বিক্রি করে দেওয়ার কথা… না, চাইলেও পারি না। কিছু Miscalculations, lack of proper guidance আর নিজের চিরাচরিত খামখেয়ালিপনার ফল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে CHANCE না পাওয়া। সমান জিপিএ নিয়েও আমার বন্ধুরা প্রথম বারে (কেউ কেউ দ্বিতীয় বারে) ভাল ভাল বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পায়।
কিন্তু আমার কোনো বারেই বোধোদয় হল না। অবশ্য ২য় বারে রাজশাহী ইউনিভার্সিটিতে ইংলিশে ভর্তি পরীক্ষায় মেরিট লিস্টেই ছিলাম। কিন্তু ভাইভাতে ১৫৮তম হই, ভর্তির সুযোগ পায় ১৫৬তম পর্যন্ত। ইতোমধ্যে ময়মনসিংহের আনন্দ মোহন কলেজে ‘ইংরেজি সাহিত্যে’ ভর্তিকৃত…শুরু হল English Literature পড়া, আর জীবনের গহীনে ঢোকা, দেখতে পেলাম নিজের ছবি, খুঁজে পেলাম ব্যর্থতার কারণ আর সফলতার টুটকা। আমার অনার্স লাইফ উল্লেখ না করাই ভালো। ১ম বর্ষ, ২য় বর্ষ যেমন তেমন ৩য় বর্ষ, ৪র্থ বর্ষ, মাস্টার্স এ একদিনও ক্লাস করি নি। (একটা সময় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস না করলেও কোন সমস্যা ছিলনা।) কোন এক অজানা কারণে, হয়তো নিজের সীমাবদ্ধতা নয়তো অন্যকিছু, ক্লাস করতে আমার ভাল লাগতো না। অনার্স রেজাল্ট উত্তম না হলেও উত্তম এর পরেই থাকত। বুঝতে পারলাম আমি চাইলে, আমিই হবো উত্তমদের একজন। উপলদ্ধি হল “আমি পারি এবং পারব”।
Skill + Motivation= Success যদি হয়, তাহলে বলবো আমার Skill ছিল, Motivation ছিলনা, ফলাফল Success Incomplete!! বুঝার আর বাকী রইল না এটাই জীবনের “অনেককিছু না পাওয়ার” একটা বড় কারণ। “জীবনে কী করব” এই চিন্তাটা প্রথম মাথায় আসে অনার্স ২য় বর্ষে। সব খুজেঁ খুজেঁ পেলাম আমার জন্য শুধু বিসিএস ক্যাডার জবটাই অবশিষ্ট আছে। লক্ষ্য পেলাম, স্বপ্নে রং লাগলো, Skill এর ঘষামাজা, সাথে পেলাম মনির স্যার, সেলিম স্যার, রিপন স্যার, সোহেল স্যার, আমার MOTIVATION. উনারা সবাই বিসিএস ক্যাডার। উনাদের নিয়ে লেখার মতো শব্দ এবং সাহস কোনটাই আমার নেই।
শুধু এইটুকু বলতে পারি, “মানুষ হওয়া”র নতুন সংজ্ঞা পাই উনাদের সহচর্যেই। উনাদের সংস্পর্শ আমাকে বুঝালো ‘আনন্দ মোহন কলেজ’ আমার জন্য আর্শিবাদ, সাথে ঘুচে গেল পাবলিক ভার্সিটিতে না পড়তে পারার আক্ষেপ। উনাদের এক একটি কথা আমার কাছে ইউনিভার্সিটির এক একটি FACULTY. মনির স্যারের কাছে শিখলাম পরিশ্রমের নতুন সংজ্ঞা। তিনি হচ্ছেন এমন একজন যাঁর passion & love expressed through hard words , helps set goals, never uses his own hands directly to reach those goals for others, but always STAND BY. তিনি আমাকে বুঝালেন- তুমি যে আনন্দ মোহনের
স্টুডেন্ট, সেই বাঁধা তোমাকে উৎড়াতে হবে। আমি শুরু করলাম—। সেলিম স্যার শিখালেন- Positiveness of life with perfection.  রিপন স্যারের কাছে শিখলাম – Simplicity is the best sophistication আর “মানুষ চাওয়ার মতো চাইলে সব পায়।” সোহেল স্যার দেখালো – Strategy both of positive & negative to get
something you want. শুরু হলো চাকুরির পড়াশোনা। স্যারদের সাজেশন্স, বড় ভাইদের কাছে বই (পরে অবশ্য নিজেই বই কিনেছি ), আর সকাল বিকাল tuition করা। ( নিজের survival নিজে করতে হতো ২০০৯ সালে থেকে)।
চলতে থাকলো ছাত্র জীবন, সাথে স্বপ্ন To be a BCS cadre. ২য় বর্ষে ৬-৭মাস জবের পড়াশোনা করার পর বাদ দিলাম। ৩য় বর্ষে অত্যধিক টিউশনির কারণে বিসিএস নিয়ে পড়াশোনা করতে পারি নি। ৪র্থ বর্ষে আবার শুরু। তবে
প্রিলি পড়তে ভালো লাগতো না, শুরু করলাম রিটেনের পড়া। এক স্যারের পরামর্শে ভর্তি হলাম সাইফুর’স-এর ৩৪তম রিটেন কোচিং-এ। (যদিও আমি তখনও প্রিলি দেইনি, আমি ৩৫তম বিসিএস-এর প্রার্থী ছিলাম।) কিন্তু কিছুদিন পরেই ৪র্থ বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হওয়ায় কোচিং-এর ক্লাস, পরীক্ষা বাদ দিতে হলো। ৪র্থ বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর পুরোদমে বিসিএস নিয়ে পড়াশোনা শুরু করলাম। কিছুদিন পরে IBA_JU-এর MBA-এর ভর্তির circular হলো। কিছু English এবং Math বই নিজে নিজে Solution এর বদৌলতে চান্সও পেলাম, ভর্তিও হলাম। মাস্টার্স এবং MBA এর দুটি ভিন্ন সেশন আমাকে সাহায্য করল। NU এর “সেশন জট” আমাকে একটি বর দিলো!!! MBA-এর পাশাপাশি ৩৫তম প্রিলি, লিখিত, ব্যাংকসহ বেশ কিছু জবেও ভাইভা দিলাম। অনার্স শেষ করে সব মিলিয়ে বিসিএস সহ মোট ৭টি সরকারি চাকুরির ভাইভা দিয়েছিলাম। পূবালী ব্যাংক জব হয়েছিল কিন্তু যোগদান করিনি। আলহামদুলিল্লাহ অবশেষে ৩৫তম বিসিএস-এ বিসিএস প্রশাসনে (৬৬তম)
সুপারিশ প্রাপ্ত হই। এর মধ্যে মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষাও দিলাম, MBAও প্রায় শেষ। টিউশন করছি, জীবন চলছে তার আপন গতিতে….।
নতুনদের জন্য পরামর্শ
আমি অনার্স ২য় বর্ষ পর্যন্ত Dreamless + Aimless ছিলাম। ছোটবেলা আকাশে বিমান উড়তে দেখে পাইলট হওয়ার ইচ্ছা, বিটিভিতে সেনাবাহিনীর Adventure দেখে Army হওয়ার ইচ্ছা, কখনোবা পুলিশ হওয়ার স্বপ্ন… (হা হা হা) আসলে Fixed ছিল না কিছুই । কিন্তু যখন AIM পেলাম, FOCUSED করলাম। আর কখনও পিছনে ফিরে তাকাইনি। When I got, who I am What I can & can’t, what is my SWOT ( Strength , Weakness, Opportunity & Threat) I just started to march on with full confidence. আমি কখনই খুব ভালো পড়ুয়া ছিলাম না, এখনও নই। তবে যা পড়েছি, এমনভাবে পড়েছি মনে হয়েছে মানুষ হিসেবে এটি আমার জানার প্রয়োজন। জবের পড়ায় “এটা পড়ব না, ওটা পড়ব” এমন চিন্তা না করে সব পড়ার চেষ্টা করেছি এবং সেটা জানার তৃপ্তি নিয়ে।
Study strategy, Exam strategy এগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ । এসবের জন্য আপনার আশেপাশের যে কারোর কাছ থেকে খুব সহজেই HELP পেতে পারেন। কিন্তু সিদ্ধান্ত আপনাকেই নিতে হবে, পড়াশোনা আপনাকেই করতে হবে। একজন যোগ্য প্রার্থী নিজেই পরীক্ষার হলে বসে নির্ণয় করতে পারে কাট মার্কস কত হবে, অন্যের বক্তব্য অনুসরণ করে নয়। মনে রাখবেন, অন্যের observation আপনার সাথে নাও মিলতে পারে। আপনার situationআর অন্যের situation এক না। যোগ্যরা সবসময় নিজের পরিস্থিতি অনুসারে নিজেই সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে, নিতে হয় । নিজেকে চিনুন এবং লক্ষ্য স্থির রেখে পরিশ্রম করুন, সফলতা আসবেই ইনশাল্লাহ।
জরুরি কয়েকটি কথা
♦ আপনি যদি মেসে থাকেন, তাহলে মেসের প্রতিকূল পরিবেশে survive করা একটু বেশিই কষ্টের। কিন্তু সফল হতে হলে এটাকেই আপনাকে জয় করতে হবে। so, be laborous.
♦ মেসে ‘খালামনি’ না আসাটা স্বাভাবিক ব্যাপার। এই ‘খালামনি’ না আসার ব্যাপারটাকে পড়াশোনা. ক্লাস, পরীক্ষা বন্ধ রাখার ‘শিল্প’ বানাবেন না।
♦ ঈদ, পূঁজা, পার্বণে বা প্রয়োজনে-অপ্রয়োজনে বেশি বেশি বাড়িতে সময় কাটানোর “অণুঘটক” বানানো সমীচীন নয়।
♦ বন্ধু, বান্ধবী, দোস্ত (আরও কি যেন ১টা শব্দ!!) আজকাল একটু বেশিই থাকে। So, Be cautious.
♦ END, NO, FAIL শব্দগুলো সবার জীবনেই negative । তাই শব্দগুলো একটু এভাবে ভাবতে পারেন,
END = Efforts Never Die,
NO= Next Opportunity
FAIL= First Attempt In Learning ।
Request: Please be a man first, not a BCS cadre.
WIN YOU GOOD LUCK.




Trainee Assistant Officer-পদে Eastern Bank Ltd-এর নিয়োগ


Trainee Assistant Officer-পদে Eastern Bank Ltd-এর নিয়োগ


Prime Responsibilities
•  Make payment and receive of cash efficiently, flawlessly; within shortest possible time
•  Ensure Customer Satisfaction by ensuring Service Excellence in Cash Area
•  Achieve set Business target of Loans and Deposits
•  Stay alert against fake notes, fraudulent transaction and Money Laundering
•  Necessary maintenance/ Cash loading / Reconcile of ATM



Qualification & Other Competencies
•  BBA/ Bachelor in Economics/ Business Studies/ MBM from recognized institutions
•  Minimum CGPA: 3 out of 4
•  Excellent verbal and written communication skills
•  Adequate computer literacy to work in online software modules & office packages



Job Location
•  Anywhere in Bangladesh


Compensation & Benefit
•  Monthly Gross Salary of BDT 18,000
•  Career progression opportunity as Assistant Officer based on performance
•  Two Festival Bonuses
•  Medical Facilities
•  Other benefits as per Bank Policy



Applicants desire to apply should send application through www.ebl.com.bd/career on or before Sep 24, 2016.

Only short listed candidates will be communicated.





Applicants desire to apply should send application through www.ebl.com.bd/career on or before Sep 24, 2016.

Trainee Assistant Officer-পদে Eastern Bank Ltd-এর নিয়োগ


Trainee Assistant Officer-পদে Eastern Bank Ltd-এর নিয়োগ


Prime Responsibilities
•  Make payment and receive of cash efficiently, flawlessly; within shortest possible time
•  Ensure Customer Satisfaction by ensuring Service Excellence in Cash Area
•  Achieve set Business target of Loans and Deposits
•  Stay alert against fake notes, fraudulent transaction and Money Laundering
•  Necessary maintenance/ Cash loading / Reconcile of ATM



Qualification & Other Competencies
•  BBA/ Bachelor in Economics/ Business Studies/ MBM from recognized institutions
•  Minimum CGPA: 3 out of 4
•  Excellent verbal and written communication skills
•  Adequate computer literacy to work in online software modules & office packages



Job Location
•  Anywhere in Bangladesh


Compensation & Benefit
•  Monthly Gross Salary of BDT 18,000
•  Career progression opportunity as Assistant Officer based on performance
•  Two Festival Bonuses
•  Medical Facilities
•  Other benefits as per Bank Policy



Applicants desire to apply should send application through www.ebl.com.bd/career on or before Sep 24, 2016.

Only short listed candidates will be communicated.





Applicants desire to apply should send application through www.ebl.com.bd/career on or before Sep 24, 2016.

পড়া মুখস্ত করার অসাধারণ কিছু কৌশল





দুই দিন আগে কি পড়েছিলেন ভুলে গেছেন। কিন্তু গত ঈদে কই নামাজ পড়েছিলেন, কয়েক বছর আগে এসএসসি রেজাল্টের সময় কই ছিলেন, ঠিকই মনে আছে। তারমানে আপনার পড়ালেখা মনে না থাকলেও, বাকি সব ঠিকই মনে থাকে। তাই বাকি সব মনে রাখার স্টাইলে খুব সহজেই পড়ালেখা মনে রাখতে পারবেন-
01: আগ্রহ নিয়ে খালি মাথায় পড়তে বসুন: খেলা, মুভি দেখার জন্য আপনি যেমন আগ্রহ নিয়ে, জিতার আশা নিয়ে বসো। পড়ার সময়ও একইভাবে, নিজের ভিতর থেকে আগ্রহ নিয়ে, পড়া কঠিন, মনে থাকে না, বুঝি না- এইসব ভুলে, খালি মাথা নিয়ে বসতে হবে। সেই জন্য ভোরে উঠে পড়তে বসলে মাথা ক্লিন থাকে এবং পড়া দ্রুত মাথায় ঢুকে।
02: ছোট ছোট অংশে ভাগ করে পড়ুন: খুব সিম্পল একটা উদাহরণ দেই। ধরুন আপনার একটা ফোন নাম্বার মনে রাখা দরকার। এখন ০১৭১৭৬৫৩৯২২ পুরাটা একসাথে পড়লে দুই মিনিট পরেই ভুলে যাবা। তাই ভেঙ্গে ভেঙ্গে ০১৭১৭ – ৬৫৩ – ৯২২ স্টাইলে পড়ুন। পড়ার সময় চিন্তা করুন- “০১৭১৭ (আধা সেকেন্ড দম নিয়ে) ৬৫৩ (আধা সেকেন্ড দম নিয়ে) ৯২২”, তাহলে মনে রাখা সহজ হবে। এরপর নাম্বারটা ব্রেইনে সেট করার টার্গেট নিয়ে খেয়াল করে করে তিনবার পড়ুন। দুইবার না দেখে কাগজে লিখুন। দেখবেন এক মাসেও এই নাম্বার ভুলবেন না। শুধু ফোন নাম্বার না, বড় সাইজের প্রকারভেদ, ব্যবসায় নীতি, বিশাল প্রমাণ এই সিস্টেমে ভাগ ভাগ করে পড়ুন।
03: মেইন পয়েন্টকে ক্লু হিসেবে ব্যবহার করুন: যেমন ধরুন নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র- “কোন বস্তুর ভরবেগের পরিবর্তনের হার প্রযুক্ত বলের সমানুপাতিক এবং বল যে দিকে ক্রিয়া করে বস্তুর ভরবেগের পরিবর্তন সেদিকেই ঘটে।” পড়ার সময় নিজেই নিজেকে জিজ্ঞেস করবেন- এই সূত্রের মেইন পয়েন্ট কি? একটু খেয়াল করলেই বুঝতে পারবেন এই সূত্রের মেইন পয়েন্ট হচ্ছে- “ভরবেগের পরিবর্তন”। এবং ভরবেগের পরিবর্তনের দুইটা বৈশিষ্ট্য বলছে। এক: ভরবেগের পরিবর্তন- বলের সমানুপাতিক। দুই: ভরবেগের পরিবর্তন- বলের দিকে।
এখন আপনার ব্রেইনে সূত্রের নামের সাথে মেইন পয়েন্টের কানেকশন সেট করা লাগবে। যাতে সূত্রের নাম শুনার সাথে সাথেই মূল বিষয়বস্তু ব্রেইনে ভেসে উঠে। সেজন্য প্রথমে সূত্রের নাম লিখবেন তারপর কোলন(:) দিয়ে মেইন পয়েন্ট লিখবেন। অনেকটা এইভাবে “নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র: ভরবেগের পরিবর্তন- বলের সমানুপাতিক, বলের দিকে”। এরপর থেকে যতবার সূত্রের নাম দেখবেন ততবার কানেকশন এবং ক্লু দিয়ে পুরা সূত্র ইজিলি মনে করতে পারবেন।
যদি হাইলাইটার, কলম বা পেন্সিল দিয়ে দাগিয়ে পড়ার অভ্যাস থাকে, তাহলে শুধু মেইন পয়েন্ট বা ক্লু গুলাকে দাগান। যাতে রিভাইজ দেয়ার সময় চোখ আগে দাগানো অংশের নিচে চলে যায়।
04: পড়ার টপিকের সাথে লাইফের ঘটনা মিশাও: আপনি এক সপ্তাহ আগে কি খাইছিলেন ভুলে গেছো। কিন্তু কয়েক মাস আগে ঈদের দিন সকালে কি খাইছিলেন বা কয়েক বছর আগে এসএসসি রেজাল্টের সময় কই ছিলেন, ঠিকই মনে আছে। তারমানে কোন কিছুর সাথে ইমোশন বা ইস্পেশাল আগ্রহ থাকলে সেই জিনিস আমরা ভুলি না। সো, প্ৰত্যেকটা চ্যাপ্টারের গুরুত্বপূর্ণ জিনিসের সাথে একটা ইমোশন বা লাইফের স্পেশাল ঘটনা মিশাতে পারলে সেই জিনিস সহজে ভুলবেন না।
ধরুন, ফিজিক্সের F = ma সূত্র পড়ার সময় ভাবলা- বাসা থেকে মেসে আসার সময় আমি যে বল দিয়ে আমার লাগেজটাকে টানতেছিলেনম সেই বল (Force) ছিলো F, লাগেজের মধ্যে যা যা ছিলো সেগুলার ভর(mass) হচ্ছে m আর a হচ্ছে আমার বলের কারণে লাগেজ যে ত্বরণ(acceleration) হইছিলো। তাই লাগেজ টানার সময় আমি F = ma পরিমাণ কাজ করছি। আর আমি যেহেতু জুনের ১১ তারিখ বাসা থেকে মেসে উঠছিলেনম তাই জুনের ১১ তারিখ আমার F=ma দিবস। দেখছো, কোন ঘটনা বা স্মৃতির সাথে পড়াকে মিলাতে পারলে সেটা মনে রাখা অনেক সহজ এবং মজার হয়ে যায়।
05: যত বেশি লিখে লিখে পড়বে তত ভালো: দেখে দেখে পড়ার চাইতে হালকা সাউন্ড বা মনে মনে উচ্চারণ করে পড়া ভালো। কন্সট্রেশন বেশিক্ষণ থাকে। তবে অংক, সূত্রের প্রমাণ, জটিল গ্রাফ অবশ্যই লিখে লিখে পড়বা। দশবার রিডিং পড়ার চাইতে একবার লিখে পড়া বেশি ইফেক্টিভ। যদিও সবকিছু ১০০% লিখে লিখে পড়তে গেলে বেশি সময় লেগে যাবে। তাই গুরুত্বপূর্ণ সূত্র, প্রমাণ বা থিওরি অন্তত একবার না দেখে লিখবে। ম্যাথ কখনোই সমাধান সামনে খোলা রেখে করবেন না। বরং পাশের রুমে রাখবা। যতবার আটকে যাবা ততবার উঠে গিয়ে দেখে আসবা। তারপরেও না দেখে দেখে করার প্রাকটিস করুন নচেৎ পরীক্ষার হলে গিয়ে আটকে যাবা।
06: নিজেই নিজের টিচার হয়ে যাও: ক্লাসের বন্ধুদের সাথে আড্ডায় পড়ালেখার টপিক নিয়ে আলোচনা করুন। কোন কিছু পড়া শুরু করার আগে কোন ফ্রেন্ডের কাছ থেকে বুঝে নিতে পারলে- পড়া বুঝা ও মনে রাখা অনেক সহজ এবং দ্রুত হয়। আর ফ্রেন্ড খুঁজে না পাইলে নিজেই নিজের টিচার হয়ে নিজেকে কোন জিনিস বুঝানোর চেষ্টা করুন। কারো কাছে পড়া বুঝতে গেলে তার কাছে ১ ঘন্টার বেশি থাকবা না। আপনি কাউকে পড়া বুঝাতে গেলে গেলে, ১ ঘন্টার বেশি সময় দিবা না।
07: পড়ার টেবিল, পড়ার রুম: যে সাবজেক্ট পড়বা সেই সাবজেক্টের বই ছাড়া অন্য বই টেবিলে রাখা যাবে না। পড়ার টেবিল দরজার পাশে, ড্রয়িং রুমে রাখবা না। মানুষ আসতে যাইতে ডিস্টার্ব হবে। আবার বারান্দা বা জানালার পাশেও পড়ার টেবিল রাখবা না। নচেৎ কিছুক্ষণ পর পর বাইরে তাকিয়ে নিজের অজান্তেই ১৫-২০ মিনিট নষ্ট করে ফেলবা। পড়ার রুমে কোন ইলেক্ট্রনিক্স যেমন টিভি, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, মোবাইল ফোন রাখা যাবে না। মোবাইল বন্ধ করে পাশের রুমে রেখে আসবা। পড়ার সময় ডিকশনারি ব্যবহার করা লাগলে প্রিন্ট করা ডিকশনারি ব্যবহার করবেন।
08: রঙ্গিন করে এঁকে পড়ুন : অনেকগুলা বৈশিষ্ট্য, পার্থক্য, প্রকারভেদ মনে না থাকলে। সেগুলার প্রথম বর্ণ দিয়ে একটা শব্দ বা ছন্দ তৈরি করুন ফেলো। ভূগোল বা বিজ্ঞানের কঠিন কোন চিত্র বা গ্রাফ থাকলে, গ্রাফের কিছু অংশ কালো, কিছু অংশ নীল, কিছু অংশ লাল রঙের কলম/পেন্সিল দিয়ে আঁকলে, গ্রাফ মনে রাখা সহজ হবে। কোন চ্যাপ্টারের গুরুত্বপূর্ণ গ্রাফ, বিদঘুটে পয়েন্টগুলো কয়েকটা গ্রুপে ভাগ করে আলাদা কালারের কলম দিয়ে খাতায় লিখো। তারপর রিকশায়, বাসে বা সেলুনে চুল কাটার সময় সেই খাতা খুলে সামনে রেখে দিবা। ব্যস, ফ্রি ফ্রি রিভাইজ দেয়া হয়ে যাবে।
ইম্পরট্যান্ট চার্ট, পয়েন্টগুলা কাগজে লিখে দেয়ালে ঝুলিয়ে রাখো। কয়েকটা গ্রাফ সিলিং এ লাগিয়ে দাও। যাতে দিনের বেলায় বিছানায় শুইলে সেগুলা দেখে দেখে রিভাইজ দেয়া যায়। আর মশারির ভিতর শোয়া লাগলে, মশারির উপরে বই বা খাতা রেখে ভিতর থেকে শুয়ে শুয়ে রিভিশন দাও।
09: রিভাইজ, রিভাইজ এন্ড রিভাইজ: গবেষণায় দেখা গেছে- আমরা আজকে সারাদিনে যত কিছু, দেখি, শুনি, জানি বা পড়ি তার ৫দিন পরে চারভাগের তিনভাগই ভুলে যাই। তবে এই ভুলে যাওয়া ঠেকানোর জন্য অনেকগুলা ট্রিকস আছে। যেমন- ৪৫ মিনিট পড়ে ১৫ মিনিটের নিবা এবং সেই ব্রেকে পড়াটা মনে মনে রিভাইজ দাও এবং কোথাও আটকে গেলে আরেকবার দেখে নাও। এবং আজকে গুরুত্বপূর্ণ কিছু পড়লে আগামীকাল ঘুমানোর আগে এই জিনিস ২০মিনিটে রিভাইজ দিয়ে দিবা। তারপর এক সপ্তাহ পরে আরেকবার রিভাইজ দিলে এই পড়ার ৯০% জিনিস এক মাস পর্যন্ত আপনার মনে থাকবে।
প্রত্যেকটা সাবজেক্টের গুরুত্বপূর্ণ জিনিস, ক্লু, সামারি পয়েন্টগুলা আলাদা আলাদা খাতায় লিখে রাখবা। চ্যাপ্টার ওয়াইজ। তারপর টিউশনি যাওয়ার পথে- রিক্সায়, বাসে, এমনকি স্টুডেন্টকে অংক করতে দিয়ে সেই খাতা দেখতে থাকবা।
যে জিনিসটা আজকে পড়ছো সেটা- গোসল, ভাত খাওয়া, সিঁড়ি দিয়েই নামা, বাসের জন্য অপেক্ষা, এমনকি বাথরুম করার সময় চিন্তা করবেন। যতবেশি চিন্তা করবেন, যতবেশি মনে মনে রিভাইজ দিবা তত বেশি মনে থাকবে।
10: বইয়ের পিছনে সামারি লিস্ট: প্রায় সব বইয়ের পিছনেই দুই-এক পাতা সাদা পৃষ্ঠা থাকে। আর না থাকলে স্কচ-টেপ বা পিন দিয়ে লাগিয়ে নিবা। তারপর যে জিনিসগুলা ভুলে যাওয়ার চান্স বেশি বা পরে ভালো করে রিভিশন না দিলে পরীক্ষার হলে লিখতে পারবেন না- সেগুলা পেইজ নাম্বার সহ বইয়ের পিছনের সাদা কাগজে লিখে রাখবা। যাতে ৩-৪ ঘন্টা রিভিশন দেয়ার সুযোগ পাইলে, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জিনিসগুলা পৃষ্ঠা নম্বর দিয়ে খুব সহজেই খুঁজে বের করে রিভিশন দিতে পারো।
11: ক্লাসে সিনসিয়ার থাকো: পড়ালেখা খুব কঠিন বা বোরিং কিছু না। একটু খেয়াল করলেই পড়ালেখা ইজিয়ার বানায় ফেলা যায়। সেজন্য ক্লাস শুরু হওয়ার সময় থেকে সিনসিয়ার হতে হবে। ক্লাসের ফার্স্ট বেঞ্চে বসে, খেয়াল করে ক্লাস নোট তুলে, সিরিয়াসলি এসাইনমেন্ট করে, বাসায় এসে ঐদিনের লেকচারগুলোকে আধা ঘন্টা করে স্টাডি করলে, পড়া অর্ধেক সহজ হয়ে যায়।
12: সিরিয়াস স্টুডেন্টদের বন্ধু হও: তিনজন সিরিয়াস স্টুডেন্টের সাথে একজন অগা-মগা থাকলেও সে পড়ালেখায় ভালো করা শুরু করবে। আর আড্ডা, সিনেমা, খেলা দেখার পাগল পোলাপানদের সাথে বন্ধুত্ব হলে পড়ালেখায় তোমাকে ছেড়ে পালাবে। সো, কষ্ট হলেও ভালো স্টুডেন্টদের সাথে থেকে তাদের ফলো করুন। এটলিস্ট সিরিয়াস স্টুডেন্টদের সাথে উঠাবসা করুন- আপনার মানসিকতায় পরিবর্তন আসবে। পড়ালেখায় মন বসবে। রেজাল্ট ভালো হবে।
13. প্রথম অক্ষর নিয়ে মজার কিছু বানাও: বাংলাদেশ সংবিধানে ১১ টা ভাগ আছে। এই ভাগগুলা পড়ার সময় প্রত্যেকটা পয়েন্টের প্রথম অক্ষর খেয়াল করবি -(প)-প্রজাতন্ত্র, (রি) রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি, (ম) মৌলিক অধিকার, (নি) নির্বাহী বিভাগ, (আ) আইন সভা, (বি) বিচার বিভাগ, (নি) নির্বাচন, (ম) মহা-হিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক, (বা) বাংলাদেশের কর্ম বিভাগ, (জ) জরুরী বিধানাবলী, (স) সংবিধান সংশোধন, বি- বিবিধ। এখন প্রথম অক্ষরগুলা দিয়ে মজার কিছু একটা বানায় ফেল। যেমন, “পরীমনি আবি নিমবাজ সবি” তাইলে আর সংবিধানের ভাগগুলা সহজে আর ভুলবি না।

Teacher Job Circular 2016


প্রতিষ্ঠান: চান্দিনা রেদোয়ান আহমেদ কলেজ
পদ সংখ্যা: ৬০ জন
আবেদনের শেষ তারিখ: ০৩ অক্টোবর, ২০১৬ইং
বিস্তারিত….


Teacher Job Circular 2016





Grameenphone Ltd Job Circular 2016


Grameenphone Ltd Job Circular 2016



বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান গ্রামীণফোন নতুন কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। প্রতিষ্ঠানটিতে ‘আর্কিটেকচার অ্যান্ড সলিউশনস লিড সিনিয়র স্পেশালিস্ট’ পদে নিয়োগ দেওয়া হবে। পদটিতে আবেদনের জন্য বিস্তারিত :
যোগ্যতা
স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক পড়ছেন এমন প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। আবেদনকারীদের প্রোগ্রামিং, স্থাপত্য ও ব্যবসায় ইন্টিগ্রেশনের ওপরে আট বছরের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। এর মধ্যে প্রার্থীদের বৃহৎ উপাত্ত-সংক্রান্ত কাজে দুই বছরের অভিজ্ঞতাসহ চার বছর নেতৃত্বস্থানীয় কাজে অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। আবেদনকারীদের অবশ্যই স্বতঃপ্রণোদিত, বিশ্লেষণধর্মী ও সৃজনশীল হতে হবে।
আবেদন প্রক্রিয়া
আগ্রহী প্রার্থীরা গ্রামীণফোনের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। আবেদনপত্র গ্রহণের শেষ তারিখ ২৪ সেপ্টেম্বর-২০১৬।

APPLY NOW

Eastern Bank Ltd Job Circular 2016

Eastern Bank Ltd Job Circular 2016

জনবল নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড। ব্যাংকটিতে চুক্তিভিত্তিতে সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেটর নিয়োগ দেওয়া হবে। পদটিতে বাংলাদেশের যেকোনো জেলায় নিয়োগ দেওয়া হতে পারে।
যোগ্যতা
সিএসই বা আইটি থেকে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পাস প্রার্থীরা আবেদন করতে পারবেন। পদটিতে আবেদনের জন্য কোনো অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হবে না।
আবেদন প্রক্রিয়া
পদটিতে কাজ করতে আগ্রহী হলে জীবনবৃত্তান্ত ও ছবি পাঠানো যাবে info@eblsecurities.com  ও urmee@eblsecurities.com ই-মেইল ঠিকানায়। এ ছাড়া জীবনবৃত্তান্ত পাঠানো যাবে ‘ইবিএল সিকিউরিটিজ লিমিটেড, ৫৯ মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকা, প্রথম ফ্লোর, ঢাকা-১০০০’ ঠিকানায়। আবেদন করা যাবে  ৫ অক্টোবর-২০১৬ তারিখ পর্যন্ত।
বিস্তারিত জানতে ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড প্রকাশিত বিজ্ঞাপনটি দেখুন :





Department of Narcotics Control Job Circular Exam Routine


Department of Narcotics Control Exam Routine published by ejobscircular.com . You can find your Narcotics Control Job Schedule at www.dnc.gov.bd and our Official website 🙂 Check your bd Narcotics Control Job Notice below..
Department of Narcotics Control Job Circular Exam Routine



Hope You see your Job Circular examination center and Exam Date Clearly . For more information about Department of Narcotics Control Job keep visit our website. Thank you.



Bangladesh Extension Education Services Job Circular – 450 Vacancy

Bangladesh Extension Education Services Job Circular published today ! They Offer 450 Vacancy for there recruitment Notice. Daily News paper Prothom-alo jobs. Check below this job information carefully .
Bangladesh Extension Education Services Job Circular

Organization: Bangladesh Extension Education Services
Positions: Field Organizer
Vacancy: 450
Category: NGO/Microfinance
See more here..





Application Deadline: 29 September 2016
Source: Prothom Alo
Published: 19 September 2016